উপহারের ঝুড়ি নিয়ে পাহারে আসছেন মোদী!

নিউজ ডেস্ক : কুড়ি বছরের অপেক্ষার অবসান।দীর্ঘ টানাপোড়েনের শেষে উত্তরবঙ্গের দাবি পূরণ হতে চলেছে।জলপাইগুড়িতে কলকাতা হাইকোর্টের সার্কিট বেঞ্চ চালুর অনুমোদন দিল মোদী মন্ত্রিসভা।বুধবার প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর নেতৃত্বে মন্ত্রিসভার বৈঠক এই সিদ্ধান্ত চূড়ান্ত হয়েছে।সার্কিট বেঞ্চ চালু হলে দার্জিলিং,কালিম্পং,জলপাইগুড়ি ও কোচবিহার জেলা সার্কিট বেঞ্চের আওতায় থাকবে।

এই নিয়েও সংঘাত ছিল কেন্দ্র বনাম-রাজ্যের।গত বছর মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় কেন্দ্রের অনুমোদনের আগেই সার্কিট বেঞ্চ উদ‌‌‌্‌বোধনের তারিখ ঘোষণা করে দেন।কিন্তু কেন্দ্রীয় মন্ত্রিসভার অনুমতি পাওয়া যায়নি।মমতার ঘোষণা নিয়ে মামলাও হয় হাইকোর্টে।যে সিদ্ধান্ত আদালতের নেওয়ার কথা,কী করে মুখ্যমন্ত্রী তা নিচ্ছেন বা ঘোষণা করে দিচ্ছেন— সে প্রশ্নও ওঠে সেই সময়ে। হাইকোর্টে মামলায় জানানো হয়,নিয়মানুযায়ী কেন্দ্রীয় ক্যাবিনেটের অনুমোদনও দরকার।অবশেষে সেই অনুমোদ দিল কেন্দ্রীয় মন্ত্রিসভা।

এই রাজ্যকে পাখির চোখ করেছে বিজেপি।বেশি করে নজর উত্তরবঙ্গের আসনগুলি।শুক্রবার ময়নাগুড়িতে সভা করবেন প্রধানমন্ত্রী।ঠিক তার আগেই উত্তরবঙ্গে সার্কিট বেঞ্চের অনুমোদন।১৯৮৮ সালে কলকাতা হাইকোর্টের ফুল বেঞ্চ সার্কিট বেঞ্চ গঠনের নীতিগত সিদ্ধান্ত নেয়।বাম জমানায় এই বেঞ্চ শিলিগুড়ি না জলপাইগুড়িতে হবে,তা নিয়ে দীর্ঘ টানাপোড়েন চলে।পরে জলপাইগুড়ি জেলা পরিষদের ডাক বাংলোয় সার্কিট বেঞ্চ চালুর প্রস্তাব হয়।তবে পরিকাঠামো নিয়ে প্রশ্ন ওঠে।২০১১ সালেও হাইকোর্টের তদনীন্তন প্রধান বিচারপতির নেতৃত্বে বিচারপতিরা পরিকাঠামো দেখে সন্তুষ্ট হননি।তৃণমূল সরকার ক্ষমতায় আসার পরে ২০১২ সালের সেপ্টেম্বরে সার্কিট বেঞ্চের নিজস্ব ভবনের জন্য ৪০ একর জায়গা বরাদ্দ হয়।হাইকোর্টের তদানীন্তন প্রধান বিচারপতি ভিত্তিপ্রস্তরও স্থাপন করেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *