Wednesday, April 25, 2018
Home > বিশেষ প্রতিবেদন > প্রশাসনের অবহেলা,ইতিহাস আজ ভুতুড়ে!

প্রশাসনের অবহেলা,ইতিহাস আজ ভুতুড়ে!

কমল মজুমদার :সুতি :নিমতিতা রাজবাড়ির জলসাঘরে এখন শুধু বেজে চলেছে ভাঙ্গনের গান কোথাও ভেঙে পড়েছে ছাদ, আকাশ উঁকি দিচ্ছে ঘরে। কোথাও কড়িকাঠের বগাগুলোতে ঘূণ পোকাদের একছএ আধিপত্যের খোশমেজাজ ।কোথাও আবার খসে পড়া চুনসুড়কি বালির শব্দ। তবু আছে ইতিহাস কখনো ফুরিয়ে যায়না বলেই হয়তো আজও আছে নিমতিতা রাজবাড়ির। ঐতিহ্যবাহী জমিদার বাড়ির পূর্ব ইতিবৃত্ত। ১৮৮৫ সাল। গৌরসুনদর চৌধুরী ও দ্বারকানাথ চৌধুরী দুই ভাই মিলে এই বাড়িতেই শুরু করেন তাঁদের জমিদারি। বৃটিশ শাসনাধীন তৎকালীন আর্থ সামাজিক তাঁদের নিরলস প্রচেষ্টায় আড়াই থেকে তিন বিঘা জমির উপর ইতালিয়ান ধাচের পাঁচটি উঠোন এবং দেড়শো ঘর বিশিষ্ট এই জমিদার বাড়িটি নিমিত হয়।

আলো উৎসব ও সাংস্কৃতিক চর্চার প্রাণকেন্দ্র হয়ে ওঠে এই রাজবাড়ি। একদা সমগ্র মুর্শিদাবাদের জাক জমকপূণ দুর্গোৎসব এই জমিদার বাড়িতেই অনুষ্ঠিত হতো। জমিদার বাড়ির গৃহদেবতা গোবিন্দজির দোল উৎসবের সময় পনেরো দিন ধরে চলতো যাএপালা। বসত মেলা। ১৯২৬ সালের ৯ফেবরুয়ারি মাএ ৪৮ বছর বয়সে জমিদার মহেন্দ্রনারায়ণ চৌধুরী পরলোকগমন করে। অবশেষে ১৯৪৪ সালে বন্যায় ভেঙে পড়ে কিছু অংশ। ভাঙ্গন সেই শুরু। তবুও ১৯৫৭ সালে সত্যজিৎ রায়ের জলসাঘর সিনেমার সুটিং হয় এই রাজবাড়িতেই। বস্তুত এই সিনেমা ফেমেই বেঁচে রয়েছে নিমতিতার রাজবাড়ির জৌলুস। একাধিক মহান ব্যক্তিত্বের পদধূলি স্মরণীয় করে রেখেছে এই রাজবাড়িকে। একদা এই রাজবাড়িতে এসেছিলেন কাজী নজরুল ইসলাম। কিন্তু বর্তমানে রীতিমতো সরকারি উদাসীনতায় ইতিহাস কালের গভীরে চলে যেতে বসেছে। জমিদার বাড়ির অদূরেই রয়েছে মুর্শিদাবাদের একমাত্র তথা রাজ্যের শ্রম দফতরের প্রতিমন্ত্রী জাকির হোসেনের বাড়ি। সব হারিয়ে এখনও কেবল দুর্গাপুজো টিকে আছে রাজবাড়িতে। ঠাকুরদালানের অবস্থা কিছুটা ভাল অন্যান্য অংশের তুলনায়। অতীতের সঙ্গে বর্তমানের যোগসূত্র এইটুকুই। সম্প্রতি জমিদার বাড়ির দু বিঘার বেশি জায়গা জুড়ে বডার সিকিউরিটি ফোস তাঁদের হেড অফিস তৈরি করে ফেলেছে। শুধু জঙ্গলাকীন জীণ দীন ভগ্নদশায় কালের প্রহরী হয়ে দাঁড়িয়ে আছে কেবল জমিদার বাড়িটি। আর অতীত স্মৃতির নীরব সাখী হয়ে পাশ দিয়ে ধীরে ধীরে বয়ে চলেছে ভাগীরথী নদী। মাঝেমধ্যে জোয়ারের জল রাজবাড়ির উঠোনে উঁকি দিয়ে যাচ্ছে। আর জলসাঘরে শুধু বেজে চলেছে ভাঙ্গনের গান।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *